সূচিপত্র

HOME

alkama.org

চিরায়ত ছড়া ও কবিতা

প্রচলিত ছড়া

==========

বঙ্গবাণী

বিদ্যার মাহাত্ম্য

স্বদেশী ভাষা

মোদের গরব মোদের আশা

কে

আমার পণ

কপোতাক্ষ নদ

রসাল ও স্বর্ন লতিকা

অপব্যয়ের ফল

বুঝিবে সে কিসে

কাজের ছেলে

কাজলা দিদি

ছিন্ন মুকুল

খাঁটি সোনা

পাল্কীর গান

তুলনা

স্বর্গ ও নরক

ষোল আনাই মিছে

বাবুরাম সাপুড়ে

বিষম চিন্তা

কানা বগির ছা

সবার আমি ছাত্র

কবর

আসমানী

খুকির সম্পত্তি

মামার বাড়ি

প্রতিদান

নিমন্ত্রণ

রাখাল ছেলে

আজিকার শিশু

হেমন্ত

শিক্ষকের মর্যাদা

আমাদের দেশ

বৃষ্টির ছড়া

ঝুমকো জবা

বাক্ বাক্ কুম

গাধার কান

পণ্ডশ্রম

সাইক্লোন

ট্রেন

নোলক

ভর দুপুরে

শহীদ স্মরণে


বড় কে

সময়

পরিচ্ছদ

পারিব না

উপদেশ

আযান

কাজের লোক

মাস্টার বাবু

তালগাছ

আত্মত্রাণ

বীর পুরুষ

নন্দলাল

ধনধান্য পুষ্পভরা

পাছে লোকে কিছু বলে

স্বাধীনতার সুখ

পরোপকার

মজার দেশ

আদর্শ ছেলে

মানুষ জাতি

ফুলের ফসল

কোন দেশে

হনহন পনপন

নবীর শিক্ষা

শিশুর পণ

প্রার্থনা

বনভোজন

কামনা

প্রভাতী

সংকল্প

খোকার সাধ

লিচু চোর

খুকি ও কাঠ বিড়ালি

শিশু যাদুকর

মানুষের সেবা

আবার আসিব ফিরে

মেঘনায় ঢল

আমাদের গ্রাম

নদী-স্বপ্ন

চাষী

সফদার ডাক্তার

মেঘনা পাড়ের ছেলে

রূপকথা

স্বদেশ

পুরনো ধাঁধাঁ

সকাল

গ্রীষ্মের দুপুরে

তালেব মাস্টার

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

মাস্টার বাবু


আমি আজ কানাই মাস্টার,

বড় মোর বেড়াল ছানাটি

আমি ওকে মারি নে মা বেত,

মিছিমিছি বসি নিয়ে কাঠি।

রোজ রোজ দেরি করে আসে,

পড়াতে দেয় না ও তো মন,

ডান পা তুলিয়ে তোলে হাই,

যত আমি বলি 'শোন, শোন'

দিনরাত খেলা খেলা খেলা,

লেখা পড়ায় ভারি অবহেলা।

আমি বলি 'চ ছ জ ঝ ঞ'

ও কেবল বলে 'মিয়ো, মিয়ো'


প্রথম ভাগের পাতা খুলে

আমি ওরে বোঝাই মা কত-

চুরি করে খাস নে কখনে,

ভাল হোস গোপালের মতো।


যত বলি সব হয় মিছে,

কথা যদি একটাও শোনে-

মাছ যদি দেখেছে কোথাও

কিছুই থাকে না আর মনে।

চড়াই পাখির দেখা পেলে

ছুটে যায় সব পড়া ফেলে।

যত বলি 'চ ছ জ ঝ ঞ'

দুষ্টামি করে বলে 'মিয়ো'

আমি ওরে বলি বার বার

'পড়ার সময় তুমি পড় -

তার পরে ছুটি হয়ে গেলে

খেলার সময় খেলা কোরো'

ভাল মানুষের মত থাকে,

আড়ে আড়ে চায় মুখপানে,

এমনি সে ভান করে যেন

যা বলি বুঝেছে তার মানে।

একটু সুযোগা বোঝে যেই

কোথা যায় আর দেখা নেই।

আমি বলি 'চ ছ জ ঝ ঞ',

ও কেবল বলে 'মিয়ো মিয়ো'।।